রবিবার ১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মার্টিনেজ কেন বাজপাখি?

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২ | প্রিন্ট

মার্টিনেজ কেন বাজপাখি?

মার্টিনেজ প্রমাণ করলেন কেন তাকে বাজপাখি বলা হয়..?

আগের ম্যাচেই ক্রোয়েশিয়ার কাছে হেরে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিয়েছে ব্রাজিল। ফলে শঙ্কা ছিল পারবে তো আর্জেন্টিনা? আশঙ্কা উড়িয়ে দিতেই যেন ৩৫ মিনিটে মেসির মেসির দারুণ এক সহায়তায় গোল করেন মোলিনা। ৭৩ মিনিটে পেনাল্টি থেকে আরেকটি গোল করেন মেসি নিজে। আর্জেন্টিনার জয় যখন শুধু সময়ের ব্যাপার মনে হচ্ছিল ঠিক তখনই দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তন নেদারল্যান্ডসের। ৮৩ মিনিট ও ইনজুরি টাইমে (৯০+১১ মিনিট) জোড়া গোল করে সব হিসেব পাল্টে দেন ভেঘোর্স্ট। ২-২ সমতা থাকায় ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে।


অতিরিক্ত সময়ে আর কোনও গোল না হওয়ায় টাইব্রেকারে গড়ায় ম্যাচ। সেখানে এমিলিয়ানো মার্টিনেজ প্রমাণ করলেন কেন তাকে বাজপাখি বলা হয়। ডাচদের প্রথম দুটি শট ঠেকিয়ে দেন তিনি। টাইব্রেকারে ৪-৩ গোলে জিতে সেমিতে যায় আর্জেন্টিনা। সেখানে তাদের প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া।

এদিন ম্যাচের শুরু থেকে দুই দলই রক্ষণ মজবুত রেখে আক্রমণে ওঠার চেষ্টা করে। ছোট ছোট পাস খেলে উভয় দল।


প্রথম ২০ মিনিটে দুবার আর্জেন্টিনার বক্সে ঢুকতে পেরেছেন মেম্ফিস ডিপাই, কডি গাকপোরা। কিন্তু খুব একটা সমস্যায় পড়তে হয়নি মার্টিনেজকে। অন্য দিকে থ্রু বলে আক্রমণে ওঠার চেষ্টা করে আর্জেন্টিনা। দুবার প্রতিপক্ষের বক্সে ঢুকলেও গোলের মুখ খুলতে পারেননি মেসিরা।

কড়া রক্ষণে রাখা হয় মেসিকে। তিনি বল পেলেই ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ংরা এগিয়ে আসছিলেন। অন্তত তিন জন মিলে তাকে আটকানোর চেষ্টা করেন।


তবে বেশিক্ষণ আটকে রাখা গেলো না মেসিকে।

৩৫ মিনিটে প্রায় ৩০ গজ দূরে বল ধরেন মেসি। ঘাড়ের কাছে চার জন ডিফেন্ডারকে নিয়ে সামনের দিকে এগোন। তারপর কোনাকুনি বল বাড়ান বক্সে থাকা মোলিনার দিকে। বল ধরে আগুয়ান গোলরক্ষকের ডান দিক থেকে বল জালে জড়িয়ে দেন মোলিনা।

দ্বিতীয়ার্ধে আক্রমণে মনযোগ দেয় নেদারল্যান্ডস। দু প্রান্ত ব্যবহার করে আক্রমণে উঠছিলেন গাকপোরা। কিন্তু আর্জেন্টিনার বক্সে সেরকম বিপদ তৈরি হয়নি।

৬৩ মিনিটের মাথায় বক্সের কিছুটা বাইরে ফ্রিকিক পায় আর্জেন্টিনা। মেসির শট একটুর জন্য গোলবারের ওপর দিয়ে যায়।

কিছুক্ষণ পর বক্সের মধ্যে আকুনিয়াকে ফাউল করেন ডেঞ্জিল ডামফ্রিস। পেনাল্টি পায় আর্জেন্টিনা। এবার গোল করতে ভুল করেননি মেসি। গোলরক্ষকের বাঁ দিক দিয়ে বল জালে জড়িয়ে দেন তিনি। চলতি বিশ্বকাপে এটি মেসির চতুর্থ গোল। ২-০ গোলে এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা।

ম্যাচের ৮২ মিনিটে এক গোল শোধ করে ডাচরা। হেডে দুরন্ত গোল করে ব্যবধান কমান ভেঘোর্স্ট। এরপরই আক্রমণের ধার বাড়ায় ডাচরা। শেষ ১০ মিনিটে আর্জেন্টাইনদের ওপর ঝড় বইয়ে দেন ডি ইয়ং-গাকপোরা।

ইনজুরি টাইমে গোল খেয়ে বসে আর্জেন্টিনা। সংযুক্তি সময়ের একেবারে শেষ মুহূর্তে বক্সের বাইরে ফ্রিকিক পেয়েছিল নেদারল্যান্ডস। বার্গুইসের ছোট ফ্রিকিক ধরে বাঁ পায়ের শটে গোল করলেন ভেঘোর্স্ট। ২-২ গোলে সমতা। ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে।

অতিরিক্ত সময়ে গোলের বেশ কয়েকটি সুযোগ পায় আর্জেন্টিনা। বক্সের মধ্যে থেকে লাউতারো মার্টিনেজের শট ভার্জিল ভ্যান ডাইকের গায়ে লেগে বেরিয়ে যায়। পরের মুহূর্তেই এনজো ফের্নান্দেজের শট একটু হলেই গোলের মধ্যে চলে যেতো, সাইড বার বাঁচিয়ে দেয় ডাচদের। শেষ মুহূর্তে মার্তিনেসের আরও একটি শট বাঁচান নেদারল্যান্ডসের গোলরক্ষক নোপার্ট। কিছুতেই গোল করতে পারেনি আর্জেন্টিনা। খেলা গড়ায় টাইব্রেকারে।

টাইব্রেকারে মেসিদের রক্ষাকর্তা হয়ে দাঁড়ালেন মার্টিনেজ। নেদারল্যান্ডসের প্রথম দুটি শট ঠেকিয়ে দেন তিনি। গোল করেন মেসি ও প্যারাদেস, মন্তিয়েল। তিন নম্বর শটে ডাচদের হয়ে গোল করেন কুপমেইনার্স। এরপর লক্ষ্যভেদ করেন ডাচদের প্রত্যাবর্তনের নায়ক ভেঘোর্স্ট। আর্জেন্টিনার হয়ে চার নম্বর পেনাল্টি নিতে যান ফের্নান্দেজ। বাইরে মারেন তিনি। ফলে আবার হৃদস্পন্দন বেড়ে যায় আর্জেন্টিনার সমর্থকদের। ডি ইয়ং গোল করার পর হৃদস্পন্দন আরও বাড়ে আর্জেন্টিনা সমর্থকদের। শেষ পেনাল্টি থেকে গোল করে দলকে জিতিয়ে দেন লাউতারো মার্টিনেজ। ৪-৩ গোলে জিতে সেমিফাইনালে ওঠে আর্জেন্টিনা।

Facebook Comments Box

Posted ৬:৫১ অপরাহ্ণ | শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২

শিক্ষার আলো ডট কম |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
অফিস

১১৯/২, চৌগাছা, যশোর-৭৪১০

হেল্প লাইনঃ 01644-037791

E-mail: shiksharalo.news@gmail.com